বাংলাদেশ | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৭ | ১১ আশ্বিন,১৪২৪

আন্তর্জাতিক

30-03-2016 09:30:46 PM

বীর্য নিয়ে বিরাট ব্যবসা! (ভিডিও)

newsImg

নামটা শুনলেই ভারতীয় দলের বিখ্যাত এক ক্রিকেটারের কথাই মনে আসে৷ কিন্তু না, এই যুবরাজ সে নয়৷ এ হলো চারপেয়ে কামধেণু৷ অতি উন্নত প্রজাতির এক দুর্লভ ষাঁড়, যার ‘সিমেন’ বা বীর্য বিক্রি করে মালিকের রোজগার বছরে ৪০-৫০ লাখ টাকা৷
কিছু দিন আগে দিল্লিতে কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠানে আয়োজিত কৃষি উন্নতি মেলায় যুবরাজ নামের এই ষাঁড় সকলের দৃষ্টি কেড়ে নেয়৷ দিল্লির কৃষি মেলায় মুরাহ প্রজাতির অতি উন্নত মানের এই ষাঁড়ের বেষ্টনিতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা কৃষক ও ডেয়ারি মালিকদের ছিল দেখবার মতো ভিড়৷ খবর ডিডাব্লিউর।
৫ ফুট ৯ ইঞ্চি উচ্চতার হৃষ্টপুষ্ট যুবরাজ নামের এই ষাঁড়টিকে দশ সদস্যের এক জুরি বোর্ড দেশের সেরা গবাদি পশুর স্বীকৃতি দিয়েছেন৷ যুবরাজের বাজার দাম অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, সাত কোটি টাকা৷ সকলের তাই নানা প্রশ্ন৷ বড়লোক ডেয়ারি মালিকরা যুবরাজকে কিনতে চাইলে যুবরাজের পালক পিতা করমবীর সিং-এর একই উত্তর৷ ‘‘না, আমার যুবরাজ বিক্রয়যোগ্য নয়৷”
তবে হ্যাঁ, বিকল্প সমাধান নিশ্চয় আছে৷ সেটা হলো, যুবরাজের ‘সিমেন’ বা বীর্যের সাহায্যে মুরাহ প্রজাতির গাভি ও স্ত্রী-মহিষকে কৃত্রিমভাবে নিষিক্ত করা যায়৷ আর তাতে বাচ্চা হলে সেই গাভি ও মহিষের গড় দুধ উৎপাদনের ক্ষমতা বা পরিমাণ দাঁড়ায় কমপক্ষে দৈনিক ২৫ থেকে ৩০ লিটার৷
তাই যুবরাজের বীর্যের চাহিদা বিরাট৷ ঐ ‘সিমেন’ বেচেই তো করমবীরের রোজগার এখন দৈনিক ৩০ হাজার টাকার মতো৷ কিভাবে এই বীর্য সংগ্রহ করা হয় এবং কোন বৈজ্ঞনিক পদ্ধতিতে তার প্রক্রিয়াকরণ ও সংরক্ষণ করা হয়, সেটা দেখতে হলে আপনাকে যেতে হবে করমবীরের কৃষি-ফার্মে, যা কিনা দিল্লির লাগোয়া রাজ্য হরিয়ানার কুরুক্ষেত্র জেলার সুনারিরিও গ্রামে৷
এই কৃত্রিম প্রজনন সম্পর্কে করমবীর বললেন, ‘‘আমার যুবরাজ দিনে সাড়ে তিন থেকে পাঁচ মিলিলিটার সিমেন দেয়৷ এই সিমেনের জন্য যুবরজকে ইলেক্ট্রো-স্টিমিউলেশন পদ্ধতিতে উত্তেজিত করা হয়৷ এরপর নিসৃত সিমেনকে পাতলা করে ৫০০ থেকে ৬০০ ডোজ সলিউশন তৈরি করা হয়৷”
এমন প্রতি ডোজের বাজার দাম প্রায় হাজার বারো’শ টাকা৷ কিন্তু সমাজের উপকারের কথা ভেবে তিনি প্রতি ডোজের দাম রেখেছেন ৩০০ টাকা৷ মানে মাসে লাখ চারেক টাকা, যা বছরে দাঁড়ায় ৪০ থেকে ৫০ লাখের মতো৷
তবে হ্যাঁ, আট বছর বয়সি যুবরাজের খোরাকি ও দেখভালের খরচও কম নয়৷ দৈনিক খরচ তিন হাজার টাকা৷ এছাড়া তাকে সুস্থ-সবল রাখতে নিয়মিত খাওয়ানো হয় অন্য পশু খাদ্যের সঙ্গে কয়েক কিলো আপেল এবং অন্যান্য ফলফলাদি৷
মুরাহ প্রজাতির অতি উৎপাদনশীল এই ষাড় পাওয়া যায় প্রধানত মধ্য ও উত্তরভারতে৷ যুবরাজের প্রজাতির গবাদি পশুর সঙ্গে তুলনীয় জাফরাবাদী এবং নীলি রবি প্রজাতি গবাদি পশুর৷ কথায় কথায় যুবরাজের পালক পিতা করমবীর জানান যে তিনি তাঁর পুত্র সমান কামধেণু যুবরাজ ষাড়ের বাবার নামও ক্রিকেটার যুবরাজের বাবা-মার নামে রেখেছেন৷ যোগরাজ সিং এবং গঙ্গা৷
তা তাঁর প্রিয় ষাড়টির নাম যুবরাজ রাখার কারণ কী? ‘‘ক্রিকেটারদের মধ্যে যুবরাজ যেমন বলিষ্টতার এক উজ্জ্বল প্রেরণা, এই যুবরাজও তেমনি”, বললেন যুবরাজের পালক পিতা করমবীর সিং৷
কি বন্ধু, যুবরাজের গল্প কেমন লাগলো আপনার? জানান নীচের ঘরে৷

খবরটি সংগ্রহ করেনঃ- আই-নিউজ২৪.কম
এই খবরটি মোট ( 633 ) বার পড়া হয়েছে।
add

Share This With Your Friends