বাংলাদেশ | মঙ্গলবার, জুন ১৯, ২০১৮ | ৪ আষাঢ়,১৪২৫

রাজধানী

13-12-2017 09:37:07 AM

যুবক হত্যায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড

newsImg

রাজধানীর ডেমরায় মো. রানা নামের এক যুবককে খুনের দায়ে চারজনের মৃত্যুদণ্ড ও দুজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকার ৪ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুর রহমান সরদার এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন মো. মাসুদ, আলামিন ওরফে আলম, শফিকুল ইসলাম ওরফে রবিন ও জাহাঙ্গীর হোসেন। চারজনই পলাতক। তাঁদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্ত দুজন আসামি হলেন বাবলা ও মনির ওরফে সন্ত্রাসী মনির। রায় ঘোষণার সময় তাঁদের কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ২০০৯ সালের ১০ জানুয়ারি ডেমরার শূন্যটেংরা গ্রামে আলিম সাহেবের জমিতে রানার লাশ পাওয়া যায়। পরে ডেমরা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম বাদী হয়ে একটি খুনের মামলা করেন। সেই মামলায় পুলিশ মাসুদ ও আলামিনকে গ্রেপ্তার করে। তাঁরা এই খুনের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। তাঁদের জবানবন্দিতে এ খুনের কারণ জানা যায়।

আলামিন ওরফে আলম জবানবন্দিতে বলেন, মনিরের কর্মচারী ছিলেন রানা। যাত্রাবাড়ীতে মনিরের জেনারেটরের ব্যবসা ছিল। রানা মনিরের সহযোগীও ছিলেন। বাজারের চাঁদার টাকা মনিরের পক্ষে রানাই তুলতেন। মনির কিছুদিন জেলে ছিলেন। তখন রানাই টাকা তোলেন। কিন্তু মনির যখন জেল থেকে বের হয়ে আসেন, রানা সেই টাকার ভাগ মনিরকে দেননি। এ জন্য রানার ওপর মনিরের ক্ষোভ ছিল। একদিন মনির তাঁকেসহ রবিন, জাহাঙ্গীর, মাসুদ ও বাবলাকে ডেকে বলেন, রানাকে শেষ করে দিতে হবে। ২০০৯ সালের ৮ জানুয়ারি যাত্রাবাড়ীতে বিপ্লবের সেলুনে একসঙ্গে তাঁরা বসেন। সেখানে বসেই রানাকে খুনের পরিকল্পনা করেন তাঁরা। পরদিন ৯ জানুয়ারি সন্ধ্যা সাতটার দিকে রবিন আলামিনকে ফোন দিয়ে ডেমরার স্টাফ কোয়ার্টারে আসতে বলেন। তিনি এসে দেখেন রবিনের সঙ্গে আছেন জাহাঙ্গীর, মাসুদ, বাবলা ও ভিকটিম রানা। পরে রবিন সবাইকে নিয়ে টেংরা এলাকায় যান। সেখানে নিয়ে তাঁরা রানাকে হত্যা করেন।

এ মামলায় জামিন নেওয়া মাসুদ ও আলামিন এখন পলাতক আছেন।

এই খুনের তদন্ত করে ২০০৯ সালের ৩১ অক্টোবর এই ছয়জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। ২০১২ সালের ১ ফেব্রুয়ারি এই ছয়জনের বিরুদ্ধে বিচার শুরু করেন আদালত। এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ থেকে ১১ জন সাক্ষীকে আদালতে হাজির করা হয়। পরে সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আজ আদালত এ রায় ঘোষণা করলেন।

খবরটি সংগ্রহ করেনঃ- Masudur
এই খবরটি মোট ( 266 ) বার পড়া হয়েছে।
add

Share This With Your Friends