বাংলাদেশ | রবিবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭ | ৩ পৌষ,১৪২৪

বিরোদী দল

16-11-2017 12:34:49 PM

২৪ ঘণ্টার নোটিসে প্রার্থী বাছাইয়ে সক্ষম : বুলু

newsImg

২৪ ঘণ্টার নোটিসেই বিএনপি ৩০০ আসনে যোগ্য প্রার্থী বাছাই করতে সক্ষম বলে মন্তব্য করেছেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী বরকত উল্লা বুলু। তিনি বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে মনোনয়নের ক্ষেত্রে সৎ, যোগ্য, ত্যাগী ও দেশের প্রতি প্রতিশ্রুতিসম্পন্ন নেতারাই এগিয়ে থাকবেন।

অনেক তরুণ নেতাও এবার মনোনয়ন পেতে পারেন। এমন নেতাদের প্রার্থী করা হবে, যারা সব সময় জনগণের পাশে দাঁড়াবে। ’ গতকাল রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় নিজ বাসভবনে একান্ত আলাপচারিতায় আই-নিউজ২৪.কম এর কাছে তিনি এ মন্তব্য করেন। যুবদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, ‘বিএনপির মনোনয়নের জন্য আগে থেকেই তালিকা প্রস্তুত রাখা কিংবা এর জন্য হোমওয়ার্ক করার তেমন প্রয়োজন পড়বে না। বিএনপি বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহত্তম ও জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল। প্রতিটি আসনে পাঁচ-সাত জন যোগ্য প্রার্থী রয়েছে। অতএব বিএনপি ২৪ ঘণ্টার নোটিসেই ৩০০ আসনে যোগ্য প্রার্থী ঘোষণা করতে পারে। সুষ্ঠু ভোট হলে বিএনপি অন্তত ৭০ ভাগ আসনেই বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে। ’ সোহওরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্য প্রসঙ্গে নোয়াখালী-৩ আসনের সাবেক এই এমপি বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেখানে প্রতিহিংসার রাজনীতি দূরে ঠেলে সহনশীল রাজনীতির বিষয়টি উঠে এসেছে।কীভাবে কার অধীনে নির্বাচন হলে গ্রহণযোগ্য হবে তাও স্পষ্ট করেছেন। স্পস্ট ভাষায় তিনি বলেন, শেখ হাসিনাকে নির্বাহী ক্ষমতার প্রধান রেখে বিএনপি নির্বাচনে যাবে না। তবে কীভাবে কার অধীনে নির্বাচন হবে তা ষোড়শ সংশোধনীর সংক্ষিপ্ত রায়েও ছিল। সেখানে উল্লেখ ছিল, আরও দুই মেয়াদে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে পারে। রায়ের পর্যবেক্ষণেও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাওয়ার কথা রয়েছে। তাই সরকার চাইলে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের মাধ্যমেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনঃস্থাপন করতে আগামী নির্বাচন দিতে পারে। ’ দেশে এখন এক রুদ্ধশ্বাস পরিস্থিতি বিরাজ করছে বলে মন্তব্য করেন বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান। তার মতে, ‘গণতন্ত্রহীন এই অবস্থা থেকে জাতিকে পরিত্রাণ পেতে হলে সরকার পরিবর্তন জরুরি। ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন একতরফা নির্বাচনের ফলে বিশ্বে বাংলাদেশ আজ বন্ধুহীন। দেশের অর্থনীতিতে ধস নেমেছে। চালের মূল্য বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি। ৮০ টাকার নিচে পিয়াজ ও শাক-সবজি ৬০ টাকার নিচে পাওয়া যায় না। ঘরের ভিতরে স্বামী-স্ত্রী, মা-ছেলে-মেয়ে হত্যা হচ্ছে। এখন কারও জীবনের কোনো নিরাপত্তা নেই। সাগর-রুনিকে ঘরের ভিতরে হত্যা করা হলো, আজও হত্যার রহস্য উদ্ঘাটিত হয়নি। একজন সাংবাদিক অনলাইনে কী লিখেছেন, এতে তাকে গুম করে ফেলা হয়েছে। এমনই একটি রুদ্ধশ্বাস অবস্থা থেকে জাতিকে মুক্ত করতে হবে। একটি মাত্র উপায় অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশীদারিত্ব নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তন। এ দেশের মানুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধি নিয়োগ দেবেন। ’ বরকত উল্লা বুলু বলেন, ‘প্রতি সপ্তাহেই বেগম খালেদা জিয়াকে আদালতে যেতে হচ্ছে। তিনবারের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ৩৬টি মামলা। তাকে রাজনীতি ও নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই সরকার সাজা দেওয়ার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। নিম্ন আদালত দায়মুক্ত করার পরও উচ্চ আদালত তারেক রহমানকে সাজা দিয়েছে। আমাদের সব নেতার বিরুদ্ধেই মামলা। সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের দুজন নেতাকে (মশিউর রহমান ও এম এ ওয়াহাব) সাজা দেওয়া হয়েছে। সবার মামলাই পুনরুজ্জীবিত করা হয়েছে। যারা বিএনপিতে অনায়াসে নির্বাচনে বিজয়ী হবে তাদের কোনো না কোনোভাবে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করাই উদ্দেশ্য। এটা সুদূরপ্রসারী ষড়যন্ত্র। এ জাল ভাঙতে হবে। ’ দেশ ও জনগণের প্রয়োজনে সংবিধান সংশোধন করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়ার কথা বলেন বরকত উল্লা বুলু। তার ভাষায়, ‘১৯৯০ সালে গণঅভ্যুত্থানের পর সংবিধানের কোথাও ছিল না যে বিচারপতি সাহাবুদ্দীন এ দেশের রাষ্ট্রপতি হবেন। একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান হবেন। প্রয়োজনের তাগিদে একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশন তার দৃঢ়তা ও নিরপেক্ষতা বজায় রেখে কাজ করেছে। আমরা আপাতদৃষ্টিতে দেখছি, বর্তমান নির্বাচন কমিশন কিছুটা হলেও নিরপেক্ষ থাকার চেষ্টা করছে।

 

কিন্তু সরকারের কর্তৃত্ব যদি দলীয়ভাবে শেখ হাসিনার কাছে থাকে তাহলে এই নির্বাচন কমিশন কিছুই করতে পারবে না। এ কারণেই নির্বাচনকালীন একটি নিরপেক্ষ সরকার প্রয়োজন। তাহলেই একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। তা দেশে-বিদেশে গ্রহণযোগ্যতা পাবে। ’ তিনি বলেন, ‘কূটনৈতিক ব্যর্থতার কারণে রোহিঙ্গা সমস্যাও সমাধান করতে পারছি না। ভারত, চীন ও রাশিয়া আমাদের কাছের বন্ধু হওয়া সত্ত্বেও তারা এ সংকটে পাশে নেই। অনির্বাচিত প্রতিনিধিরা আজ সংসদ ও সরকার দখল করে আছেন। সেজন্য বিদেশিরা বাংলাদেশকে সেভাবে গ্রহণ করছে না। ’ দাবি আদায়ে বিএনপি কি আন্দোলনে যাবে— এই প্রশ্নে বরকত উল্লা বুলু বলেন, বাংলাদেশের অতীতেও যত সফল আন্দোলন হয়েছে, তা হয়েছে পরিস্থিতির আলোকে। মানুষের ক্ষোভের বিস্ফোরণ যে কোনো সময় ঘটতে পারে। আজ শুধু বিএনপির মধ্যেই নয়, ছাত্রসমাজ, ব্যবসায়ী, শ্রমিক, সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের মানুষ এ সরকারের ওপর ক্ষুব্ধ। যে কোনো সময় বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। সময় যখন হবে পরিবেশ-পরিস্থিতি হলে বিএনপি দাবি আদায়ে অবশ্যই আন্দোলনে যাবে। ’

 

আই-নিউজ২৪.কম:নিলুফার ইয়াসমিন

খবরটি সংগ্রহ করেনঃ- আই-নিউজ২৪.কম
এই খবরটি মোট ( 54 ) বার পড়া হয়েছে।
add

Share This With Your Friends